শাল্লায় বিষপানে কিশোরী, গলায় ফাঁস দিয়ে শিশুর আত্মহত্যা

স্টাফ রির্পোটার: বিষপান করে অমায়া রাণী দাস (১৬) নামে এক কিশোরী এবং গলায় ফাঁস দিয়ে তোফাজ্জুল হোসেন (১০) নামে এক শিশু আত্মহননের ঘটনা ঘটেছে।

সুনামগঞ্জের শাল্লার হবিবপুর ইউনিয়নের ফয়েজুল্লাপুর গ্রামে একই দিনে এদ দু’টি পৃথক ঘটনা ঘটে।

রোববার (২৮জুলাই) বিকেলে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন শাল্লা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আশরাফুল ইসলাম।

শনিবার (২৭জুলাই) সকালে বিষপানে ওইগ্রামের বিশ্বপতি দাসের মেয়ে কিশোরী অমায়া রাণী দাস (১৬) এবং বিকেলে গলায় ফাঁস লাগিয়ে মারফত আলীর ছেলে কিশোর তোফাজ্জুল হোসেন (১০) আত্মহত্যা করে।

এবিষয়ে শাল্লা থানায় আলাদা আলাদা দু’টি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে। লাশ দু’টি’র সুরতহাল শেষে ময়না তদন্তের জন্য সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।
মামলা সূত্রে জানা যায়, অমায়া রাণী দাস নিজ বাড়িতে লোকের অগোচরে ইদুঁরের বিষ পান করে বমি ও চটপট করতে থাকে।

এসময় ঘরে মহিলারা দেখতে পেয়ে সাথে সাথে চিকিৎসার জন্য এমএজি ওসমানি মেডিকেল কলেজ সিলেটে নিয়ে যাওয়ার পথে তাঁর মৃত্যু হয়। অন্যদিকে কিশোর তোফাজ্জুল হোসেন ফাঁকা ঘরে গলায় ওড়না পেছিয়ে বাশেঁর তীরের সাথে ফাঁস লাগায়।

এবিষয়ে শাল্লা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আশরাফুল ইসলাম বলেন, ঘটনার খবর শুনে আমি সাথে সাথে ঘটনাস্থলে গিয়েছি।

এবিষয়ে থানায় দু’টি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে এবং লাশ দু’টি ময়না তদন্তের জন্য সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠিয়েছি।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে ৫৩৮ বার